পারসোনাল

ওয়েবসাইটের সৌন্দর্য বৃদ্ধি করে ফেভিকন, তৈরি করা খুবই সোজা !!!

FavIcon-1
লিখেছেন: পান্থ বিহোস

একটি ওয়েবসাইট যখন আমরা ওপেন করি, ব্রাউজারের বামপাশে, উপরে কোণায় একটি আইকন দেখতে পাই। এটিকেই বলে ফেভিকন বা FavIcon. হাসান ভাইয়ের এই সাইটটি খুললেই চমৎকার ঝলমলে হাসিমাখা একটি মুখ দেখি। কিংবা কখনো যখন আমাদের সামনে নেট থাকে না কিন্তু হাসান ভাইয়ের এই সাইটটির কথা চিন্তা করি তখন মনের পাতায় ফেভিকনটি ভেসে উঠে।

আপনি হয়তো একটি ওয়েবসাইট বানিয়েছেন খুব সুন্দর করে। চিন্তা করে দেখুন, সাথে যদি এই আইকনটিও থাকে তাহলে আপনার সাইটটি একটি প্রফেশনাল রূপ ধারণ করে।

ফেভিকন তৈরি করা খুবই সোজা। মাত্র তিনটি ধাপে এই কাজ সম্পন্ন করা যায়।
ক. আপনার আইকন বা লগো নির্ধারণ করা
খ. লোগোটি কনভার্ট করে ফেভিকনে রূপান্তর করা এবং
গ. আপনার ওয়েবসাইটে ফেভিকনটি আপলোড করে সাথে ছোট্ট একটি কোড সেভ রাখা।

ধাপ – ০১

ফেভিকন হিসেবে আপনি যা রাখতে চান তা ঠিক করুন। লেখা কিংবা ইমেজ উভয়ই ফেভিকন হতে পারে। লেখা হলে এটিকে ইমেজে রুপান্তর করে jpeg মোডে সেইভ করুন।

ধাপ – ০২

এখানে ক্লিক করে সাইটটিতে চলুন। এখান থেকে লগোটি কনভার্ট করতে হবে।
ব্রাউজ করে আপনার কম্পিউটার থেকে লগোটি সিলেক্ট করুন তারপর Generate FavIcon.ico বাটনে ক্লিক করুন। অল্প কয়েক মুহূর্তের মধ্যেই ফেভিকন তৈরি হয়ে যাবে।

ফেভিকন তৈরি হয়ে গেলে একটি জিপ ফাইলের মধ্যে একটি .gif, .jpg এবং একটি Read Me ফাইল থাকবে। জিপ ফাইলটি ডাউনলোড করে নিন। ব্যাস, এই পর্বের কাজ শেষ।

ধাপ – ০৩

জিপ ফাইলটি আনজিপ করুন। এবার আপনি সিদ্ধান্ত নিন আপনি এনিমেটেড ফেভিকন ব্যবহার করবেন নাকি নরমাল ফেভিকন ব্যবহার করবেন। ধরে নিলাম আপনি এনিমেটেড ফেভিকন ব্যবহার করবেন। তাহলে এফটিপি দিয়ে এনিমেটেড ফেভিকনটি আপনার ওয়েবসাইটের রুট ডিরেক্টরিতে আপলোড করে দিন।

তারপর আপনার সাইটের এডমিন প্যানেলে ঢুকে Settings > Appearance > Editor – এ ক্লিক করুন। header.php ফাইলটি ওপেন করুন। ঐ ফাইলটির আগে যেকোনো জায়গায় নিচের কোডটুকু লিখে দিন।

যদি নরমাল ফেভিকন ব্যবহার করতে চান তাহলে নিচের কোডটুকু লিখবেন-

আর যদি এনিমেটেড ফেভিকন ব্যবহার করতে চান তাহলে নিচের কোডটুকু লিখবেন।

————
কৃতজ্ঞতা এস.কে তন্ময়
এই ব্যাপারটি আমি আগে জানতাম না। কিছুদিন আগে তন্ময়দাকে ফোন করে ব্যাপারটি জানলাম। তন্ময়দার সৌজন্যেই যারা জানেন না তাদেরকে ব্যাপারটি জানালাম।

———————
বি:দ্র: পোস্টটি প্রথম প্রকাশ হয়েছিলো জিন্নাত উল হাসান ভাইয়ের ব্লগে।

লেখাটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন:

লেখক সম্পর্কে জানুন:

পান্থ বিহোস

ভবিষ্যতে ফুলটাইম লেখক হিসেবে প্রফেশন তৈরি করার ভাবনায় আপাতত ফুলটাইম ভাবুক। আর পার্টটাইম ওয়ার্কার।

মন্তব্য লিখুন

১টি মন্তব্য